খবরের কাগজে সবসময় চুরির ঘটনা দেখতে পাওয়া যায়। বর্তমানে পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে বিভিন্ন ধরনের চুরির ঘটনা। একই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে লুটপাটের ঘটনা। চুরি করার জন্য জালিয়াতরা বিভিন্ন ধরনের উপায় অবলম্বন করে থাকে। ট্রেনে, বাসে বা বিভিন্ন জায়গায় একটু অসতর্ক হলেই খোয়া যেতে পারে নিজেদের মূল্যবান জিনিস। আবার অনেকে সময় খুব বেশি সতর্ক হয়েও কিছু করার থাকে না।

এর আগে মহিলাদের শ্লীলতাহানি থেকে বাঁচানোর জন্য বিভিন্ন সংস্থা পেপার স্প্রে চালু করেছিল। এখন বিভিন্ন ধরনের কোম্পানি চুরি থেকে সাধারণ মানুষকে বাঁচানোর জন্য ইলেকট্রিক শক পেন চালু করেছে। এই পেনে টাচ করলেই বিদ্যুতের ঝটকা লাগে। অর্থাৎ এটি যদি পকেটে রেখে দেওয়া যায়, তাহলে চোর পকেটে হাত দিলেই বিদ্যুতের ঝটকা লাগবে। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক এই ইলেকট্রিক শক পেনের সকল খুঁটিনাটি।

ইলেকট্রিক শক পেনের ফিচার –

চুরির থেকে বাঁচার জন্য তৈরি করা হয়েছে এই ধরনের অভিনব ইলেকট্রিক শক পেন। এই ইলেকট্রিক শক পেনে তিন সেলের ব্যাটারি থাকে। এই ব্যাটারিগুলি একটি সার্কিটের মাধ্যমে সংযুক্ত থাকে। এর ফলে ইলেকট্রিক শক পেনে চাপ দিলে সার্কিটটি সম্পূর্ণ হয় এবং শক দেয়। অর্থাৎ এই ইলেকট্রিক শক পেন চালু করে পকেটে রেখে দিলেই হল। এর ফলে চোরেরা পকেটে হাত দিলেই ইলেকট্রিক শক খাবে।

ইলেকট্রিক শক পেনের উপরের অংশটি এমন ভাবে তৈরি, যা শরীরে বৈদ্যুতিক শককে দ্রুত প্রবাহিত করতে সহায়তা করে। কেউ যদি এই ইলেকট্রিক শক পেন কারও পকেটে রাখে, তাহলে চোরকে একটি ভাল শিক্ষা দেওয়া যেতে পারে।

ইলেকট্রিক শক পেনের দাম –

গ্রাহকরা এই ইলেকট্রিক শক পেন যে কোনও ই-কমার্স সাইট বা নিজেদের শহরের গ্যাজেট বিক্রির দোকান থেকে ক্রয় করতে পারেন। ইলেকট্রিক শক পেনের দাম ৫০ থেকে ১০০ টাকা। গ্রাহকরা ই-কমার্স সাইট অ্যামাজন থেকে Ayra Crafts ইলেকট্রিক শক পেন কিনতে পারে, মাত্র ৯৯ টাকায়।

ইলেকট্রিক শক পেন ব্যবহার করার উপায় –

কেউ যদি প্রয়োজনে অন্য কাউকে শিক্ষা দিতে চান, তাহলে নিচ থেকে এই পেন ধরতে হবে লক্ষ্যের দিকে- পেনের বোতামটি টিপতে হবে। লক্ষ্যবস্তু পেনের বোতামের সংস্পর্শে আসার সঙ্গে সঙ্গে একটি শক্তিশালী বৈদ্যুতিক শক পাবে!

Tags: Electric Shock, Technology

-Travo News

for More

Like and Subscribe

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Verified by MonsterInsights